শনিবার , ৮ আগস্ট ২০২০
Menu
Home » আন্তর্জাতিক » বিমান ভূপাতিত করার অভিযোগ স্বীকার করেছে ইরান

বিমান ভূপাতিত করার অভিযোগ স্বীকার করেছে ইরান

বাংলা সংলাপ ডেস্ক: ইরানের সামরিক বাহিনী জানিয়েছে, অনিচ্ছাকৃতভাবে ইউক্রেনের যাত্রীবাহী বিমানটিকে ভূপাতিত করেছে তারা। যাতে ১৭৬ আরোহী নিহত হয়েছে। ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনের প্রতিবেদনে এ কথা জানানো হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, ইরানের রেভল্যুশনারি গার্ডের একটি স্পর্শকাতর ও গুরুত্বপূর্ণ সাইটের কাছাকাছি যাত্রীবাহী বিমানটি চলে আসলে “মানব ত্রুটি”র কারণে বিমানটি ভূপাতিত হয়।

বিমানটিকে “শত্রু টার্গেট” মনে করে ভুল করা হয় এবং ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়, বিবৃতিতে বলা হয়।

বিবৃতিতে আরো বলা হয়, এ ঘটনায় জড়িতদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে।

এর আগে ইরান অস্বীকার করে যে, দেশটির একটি ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমানটি বুধবার রাজধানী তেহরানের কাছে বিধ্বস্ত হয়।

কিন্তু ইরান হয়তো ভুল করে ক্ষেপণাস্ত্রের আঘাতে বিমানটি ভূ-পাতিত করেছে- যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডা গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে এমন দাবি তোলার পর থেকে ইরানের উপর চাপ বাড়তে থাকে।

এক টুইটে ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রূহানি বলেন, বিমানটির “ভয়ংকরভাবে বিধ্বস্ত” হওয়ার ঘটনা “ক্ষমার অযোগ্য ভুল”।

ইরাকে মার্কিন দুটি বিমান ঘাঁটি লক্ষ্য করে ইরান হামলা চালানোর কয়েক ঘণ্টা পরই ইউক্রেন ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট পিএস৭৫২ বিধ্বস্ত হয়। এতে ১৭৬ আরোহীর সবাই মারা যায়।

ইউক্রেনের ওই ফ্লাইটটি ইউক্রেনীয় রাজধানী কিয়েভ হয়ে কানাডার টরেন্টোর দিকে যাচ্ছিল, কিন্তু উড্ডয়নের কিছুক্ষণ পরেই ইমাম খোমেনি বিমানবন্দরের কাছে আছড়ে পরে এটি।

বিমান বিধ্বস্তে নিহতদের মধ্যে ইরানি ছাড়াও কানাডা, সুইডেন, ইউক্রেন, আফগানিস্তান ও জার্মানির নাগরিক ছিল
বিমান বিধ্বস্তে নিহতদের মধ্যে ইরানি ছাড়াও কানাডা, সুইডেন, ইউক্রেন, আফগানিস্তান ও জার্মানির নাগরিক ছিল

মার্কিন গণমাধ্যমে বলা হয় যে, ইরান যেহেতু যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নেয়ার জন্য প্রস্তুত ছিল তাই তারা হয়তো ইউক্রেনীয় এয়ারলাইন্সের বিমানটিকে যুদ্ধ বিমান ভেবে ভুল করেছে।

জানুয়ারির ০৩ তারিখে ইরানের শীর্ষ জেনারেল কাসেম সোলেইমানি মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হওয়ার প্রতিশোধ হিসেবে আকাশ পথে হামলা চালায় ইরান।

শনিবার এক টুইটে ইরানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোহাম্মদ জাভেদ জারিফ বলেন, “যুক্তরাষ্ট্রের হঠকারিতা” ইউক্রেনীয় জেটটি ভূ-পাতিত হওয়ার জন্য আংশিকভাবে দায়ী।

বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহতদের মধ্যে ৮২ জন ইরানের, ৫৭ জন কানাডার এবং ১১ জন ইউক্রেনের নাগরিক ছিলেন। এছাড়া সুইডেন, যুক্তরাজ্য, আফগানিস্তান এবং জার্মানির নাগরিক থাকার কথাও জানা যায়।

ইরানের বিবৃতিতে কী বলা হয়েছে?

শনিবার সকালে, ইরানের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে পাঠ করা সামরিক বাহিনীর এক বিবৃতিতে বলা হয়, সামরিক বাহিনী ভুল করে ফ্লাইট পিএস৭৫২ লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, রেভল্যুশনারি গার্ড যা ইরানের ইসলামি ব্যবস্থা প্রতিরক্ষার জন্য তৈরি করা হয়েছে সেটির “স্পর্শকাতর একটি সামরিক কেন্দ্রের” কাছে চলে গিয়েছিল বিমানটি।

যুক্তরাষ্ট্রের সাথে উত্তেজনা চরমে থাকার কারণে ইরানের সামরিক বাহিনী “সর্বোচ্চ প্রস্তুতিতে ছিল।” “এমন অবস্থায়, মানব ত্রুটির কারণে অনিচ্ছাকৃতভাবে ফ্লাইটটিতে আঘাত হানা হয়েছিল,” বিবৃতিতে বলা হয়।

আরও দেখুন

১৯১ যাত্রী নিয়ে ভারতীয় বিমান দু’টুকরো

বাংলা সংলাপ রিপোর্টঃ দুবাই থেকে ১৯১ জন আরোহী নিয়ে ভারতের কেরালায় নামার সময় রানওয়েতে ছিটকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *